• বুধবার, ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৯:৩০ অপরাহ্ন
শিরোনাম
তিউনিসিয়া উপকূলে নৌকা ডুবির ঘটনায় বাংলাদেশী নিহত ৮ আহত ২৭ জীবিত উদ্ধার এলাকার উন্নয়নে প্রত্যেক সংসদ সদস্যরা পাবেন ২০ কোটি টাকা ড. মুহাম্মদ ইউনূস ও আমাদের সমাজ রাজনীতির কারণে পুতিনের শত্রুতেও পরিণত হন নাভালনি কারাগারে হঠাৎ অসুস্থ হয়ে মারা গেছেন রাশিয়ার বিরোধী দলীয় নেতা নাভালনি ইংরেজিতেও নতুন AADE সাইট তৈরি করল গ্রিক কর্তৃপক্ষ আওয়ামী লীগের যারা সংরক্ষিত নারী আসনে মনোনয়ন পেলেন ইউক্রেন যুদ্ধ থেকে পিছু হটলে গুপ্তহত্যার শিকার হতে পারেন পুতিন : ইলন মাস্ক দেশবরেণ্য আলেম মাওলানা লুৎফর রহমান ব্রেনস্ট্রোকে আক্রান্ত হয়েছেন ফখরুল ও খসরুর জামিন মঞ্জুর মুক্তি পেতে সব বাধা অপসারিত
বিজ্ঞপ্তি
প্রিয় পাঠক আমাদের সাইটে আপনাকে স্বাগতম এই সাইটি নতুন ভাবে করা হয়েছে। তাই ১৫ই অক্টোবর ২০২০ সাল এর আগের নিউজ গুলো দেখতে ভিজিট করুন : old.bdnewseu24.com

অস্ট্রিয়ান সরকার প্রথম ইউরোপীয় দেশ হিসাবে তৃতীয় বারে লকডাউন ঘোষণা

কবির আহমেদ কূটনৈতিক প্রতিবেদক অস্ট্রীয়া
আপডেট : শুক্রবার, ১৮ ডিসেম্বর, ২০২০

অস্ট্রিয়ান সরকার প্রথম ইউরোপীয় দেশ হিসাবে তৃতীয় বারের মত লকডাউন ঘোষণা

২৬ ডিসেম্বর থেকে ২৪ জানুয়ারী পর্যন্ত সম্পূর্ণ লকডাউন
আজ শুক্রবার ১৮ ডিসেম্বর অস্ট্রিয়ান সরকার প্রধান চ্যান্সেলর সেবাস্তিয়ান কুর্জের নেতৃত্বে সরকার ও ৯ টি রাজ্যের গভর্নরদের এক ভিডিও কনফারেন্সের পর সেবাস্তিয়ান কুর্জ এক সাংবাদিক সম্মেলনে এই ঘোষণা দেন। সেবাস্তিয়ান কুর্জ আজ অসুস্থ শরীর নিয়েই এই প্রেস কনফারেন্সে অংশগ্রহণ করেন। ঠান্ডায় স্বরভঙ্গের কারনে তার কথা বলতে অসুবিধা হচ্ছিল।
অস্ট্রিয়ান চ্যান্সেলর (প্রধানমন্ত্রী) সেবাস্তিয়ান কুর্জ বলেন,”স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে আসতে” আমরা পুনরায় তৃতীয়বারের মত দেশে সম্পূর্ণ লকডাউনে যাচ্ছি। “আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি যে আমরা পরিকল্পনা অনুযায়ী এই বৎসর ক্রিসমাস উদযাপন করবো। উৎসব উদযাপনের পর আমরা পুনঃরায় পূর্বের লকডাউনের মতোই কঠোর বিধিনিষেধের সম্মুখীন হতে যাচ্ছি। তিনি জোর দিয়ে বলেন এখন আমাদের পরিস্থিতি বিবেচনা করে ১০০ দিনের কাজ ৭ দিনে করতে হবে। লকডাউনের পর পরই দেশব্যাপী পুনরায় ফ্রি করোনার গণ পরীক্ষার ঘোষণা দেন।
তৃতীয় লকডাউনে তিন দফা পরিকল্পনাঃ প্রথম ধাপে ২৬ শে ডিসেম্বর থেকে ২৪ ঘন্টার কারফিউ বা বিনা কারনে ঘর থেকে বের না হওয়ার নিষেধাজ্ঞা সহ কঠোর লকডাউন শুরু হবে যাতে সংক্রমণের বিস্তার পুনরায় দ্রুত হ্রাস পায়। দ্বিতীয় ধাপে করোনাভাইরাস সংক্রমণের বিস্তার কমিয়ে আনার সর্বাত্মক চেষ্টা করা যাতে অস্ট্রিয়ার প্রায় ৯০ লক্ষাধিক জনগণ পুনরায় তাদের স্বাভাবিকতার জীবনে নিরাপদে প্রত্যাবর্তন করতে পারে। তৃতীয়ধাপে পরিস্থিতির উপর ভিত্তি করে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার ব্যবস্থা করা। তবে ৭ জানুয়ারী থেকেই Distance Learning অর্থাৎ অনলাইন ক্লাশ পুনরায় শুরু করা ১৭ জানুয়ারী পর্যন্ত এবং ১৮ জানুয়ারী থেকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

তৃতীয় লকডাউনে নতুন বিধিনিষেধের সংক্ষিপ্তসারঃ বড়দিনঃ ২৪ শে এবং ২৫ শে ডিসেম্বরের জন্য এর জন্য ইতিমধ্যেই কিছুটা শিথিলতার ঘোষণা দেওয়া হয়েছে। এই দুই দিন সর্বোচ্চ ১০ জনের মিলিত হওয়ার অনুমতি ও মাস্ক পড়ার বাধ্যবাধকতা প্রত্যাহার করা হয়েছে। নববর্ষ উদযাপনঃ ২০২০/২০২১ নববর্ষের সকল প্রকার উদযাপন নিষিদ্ধ করা হয়েছে। নববর্ষের সময়ও ২৪ ঘন্টার কারফিউ বলবৎ থাকবে। ২৪ জানুয়ারীর পর থেকে কারফিউ উঠিয়ে নেয়া হবে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী কার্ল নেহামার জানান, দ্বিতীয় লকডাউনে সমগ্র অস্ট্রিয়ায় প্রায় ৯,০০০ হাজার মানুষ ও প্রতিষ্ঠানকে করোনার বিধিনিষেধ ভঙ্গের জন্য অর্থ জরিমানা ও মামলা দায়ের করা হয়েছে। তিনি জানান,তৃতীয় লকডাউনেও পুলিশ কঠোরভাবে বিধিনিষেধ নিয়ন্ত্রণ করবে। তৃতীয় লকডাউনে পূর্বের মতোই সেলুন,ব্যবসা-বাণিজ্য সহ সকল প্রকার দোকানপাট বন্ধ থাকবে। শুধুমাত্র নিত্যপ্রয়োজীয় জিনিসপত্রের সুপারমার্কেট,ফার্মেসী, পোস্ট অফিস এবং হাউজ চিকিৎসক বা বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের চিকিৎসাকেন্দ্র খোলা থাকবে।

আগামী ১৫,১৬ ও ১৭ জানুয়ারী পুনরায় সারাদেশে করোনার ফ্রি পরীক্ষার ব্যবস্থা করা হবে। এই সম্পর্কে পরে আরও বিস্তারিত জানানো হবে বলে জানিয়েছেন স্থানীয় সংবাদ মাধ্যম। এদিকে আজ অস্ট্রিয়ায় করোনায় নতুন করে সংক্রমিত সনাক্ত হয়েছেন ২,০৮৫ জন এবং মৃত্যুবরণ করেছেন ১৪৫ জন। গত এক সপ্তাহের দৈনিক গড় সংক্রমণ ২,৬১৯ জন। রাজধানী ভিয়েনায় আজ সংক্রমিত হয়েছেন ৪৪১ জন। অন্যান্য রাজ্যের মধ্যে NÖ রাজ্যে ৪২৩ জন,OÖ রাজ্যে ২৯৭ জন,Steiermark রাজ্যে ২৫৩ জন,Tirol রাজ্যে ১৮৪ জন,Kärnten রাজ্যে ১৬১ জন,Salzburg রাজ্যে ১৩৯ জন,Vorarlberg রাজ্যে ১০৩ জন এবং Burgenland রাজ্যে ৮৪ জন নতুন করে করোনায় সংক্রমিত সনাক্ত হয়েছেন।

অস্ট্রিয়ায় এই পর্যন্ত মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৩,৩৪,৯১৩ জন এবং মৃত্যুবরণ করেছেন ৫,১২৭ জন। করোনার থেকে এই পর্যন্ত আরোগ্য লাভ করেছেন ২,৯৭,৪২৪ জন। বর্তমানে করোনার সক্রিয় রোগীর সংখ্যা ৩২,৩৬২ জন। এর মধ্যে ক্রিটিক্যাল অবস্থায় আইসিইউতে আছেন ৪৯৫ জন এবং হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন ৩,০৭৩ জন। বাকী আক্রান্তরা নিজ নিজ বাড়িতে আইসোলেশনে আছেন।
বিডিনিউজ ইউরোপ /১৮ ডিসেম্বর / জই


আরো বিভন্ন ধরণের নিউজ