• মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০২৪, ১১:২৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম
ঢাবির হলে শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তার স্বার্থে ভিসির বাসভবনের জরুরী বৈঠক হয়েছে শিক্ষার্থীদের রক্তে রক্তাক্ত ঢাবি, আহত শতাধিক ইংল্যান্ডকে হারিয়ে ইউরো ফুটবলের চ্যাম্পিয়ন স্পেন টিউশনির টাকায় রোবট তৈরি করে তাক লাগালেন লালমনিরহাটের হাবিব অস্ট্রিয়ার রাজধানী ভিয়েনায় জাঁকজমকপূর্ণ বিবাহত্তোর অনুষ্ঠান সম্পন্ন কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের নিয়ে সরকারের মন্তব্য বিদ্বেষপ্রসূত, বিভ্রান্তিকর : গণসংহতি কোটাবিরোধী আন্দোলনের যে অনুভূতি মুঠোফোনে জানালেন বাবাকে, ঢাবি ছাত্রী ভোলায় শ্যালকের পর দুলাভাই ৩৯ লক্ষ টাকার ইয়াবাসহ গ্রেপ্তার শেরপুরের নালিতাবাড়ীতে চিরকুট লিখে গৃহবধূর আত্মহত্যা অস্ট্রিয়ান সরকার পারিবারিক ভিসা অত্যন্ত সূক্ষ্মভাবে পরীক্ষা করছে
বিজ্ঞপ্তি
প্রিয় পাঠক আমাদের সাইটে আপনাকে স্বাগতম এই সাইটি নতুন ভাবে করা হয়েছে। তাই ১৫ই অক্টোবর ২০২০ সাল এর আগের নিউজ গুলো দেখতে ভিজিট করুন : old.bdnewseu24.com

চট্টগ্রাম থেকে কক্সবাজার পর্যন্ত চালু করা বিশেষ ট্রেন চলাচল বন্ধ

bdnewseu online desk National news
আপডেট : বৃহস্পতিবার, ৩০ মে, ২০২৪

চট্টগ্রাম থেকে কক্সবাজার পর্যন্ত চালু করা বিশেষ ট্রেন চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হচ্ছে। আজ বৃহস্পতিবার (৩০ মে) থেকে এ বিশেষ ট্রেন আর চলাচল করবে না। ইঞ্জিন ও লোকোমাস্টার সংকটের কারণে রেল কর্তৃপক্ষ এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে এমনটি জানিয়েছে কক্সবাজার আইনকনিক রেলস্টেশনের মাস্টার মো. গোলাম রব্বানি। তবে এই রুটে ট্রেন চলাচল অব্যাহত রাখার দাবি যাত্রীদের।গত বছরের পহেলা ডিসেম্বর ঢাকা-কক্সবাজার রেল যাতায়াত শুরু হয়। এরপর চলতি বছরের ১০ জানুয়ারি পর্যটক এক্সপ্রেস নামের আরেকটি ট্রেন এ রুটে চালু করে রেল কর্তৃপক্ষ। তারপর থেকে দাবি ওঠে, চট্টগ্রাম-কক্সবাজার রেল চালু করার।এর প্রেক্ষিতে গত ঈদুল ফিতরের সময় রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ চট্টগ্রাম-কক্সবাজার রেলপথে ১৫ দিনের জন্য এক জোড়া বিশেষ ট্রেন চালু করে। পরে যাত্রীদের দাবির প্রেক্ষিতে সেটি ১০ জুন পর্যন্ত বর্ধিত করা হয়। কিন্তু রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ নতুন করে সময় না বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নেয়। আর ইঞ্জিন ও লোকোমাস্টারের সংকট দেখিয়ে ৩০ মে থেকে ট্রেন চলাচল বন্ধের সিদ্ধান্ত আসে। তবে চট্টগ্রাম-কক্সবাজার রুটে ট্রেন চলাচল অব্যাহত রাখার দাবি জানিয়েছে যাত্রীদের।

তানিয়া হাসান নামের এক যাত্রী বলেন, আমরা চাই না চট্টগ্রাম-কক্সবাজার রুটে ট্রেন চলাচল বন্ধ হোক। কারণ দীর্ঘ দিনের দাবি ছিল চট্টগ্রাম-কক্সবাজার রুটে প্রতিদিনই ট্রেন চলবে। বিশেষ ট্রেন চলাচল করায় আমরা বেশ উপকৃত হয়েছি।আরেক যাত্রী রুমানা রহমান বলেন, ট্রেনের মাধ্যমে সহজ এবং নিরাপদ ভ্রমণ করতে চায়। কিন্তু হুট করে বিশেষ ট্রেনটি বন্ধ করে দিবে এটা মেনে নিতে পারছি না।

রেলওয়ের পূর্বা লের জরুরি বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, রেলওয়ের মহাপরিচালকের (ডিজি) কার্যালয় থেকে কক্সবাজার স্পেশাল-৩ ও ৪ ট্রেনটি আগামী ১০ জুন পর্যন্ত চলাচলের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু যান্ত্রিক বিভাগ থেকে ইঞ্জিন ও লোকোমাস্টারের সংকটের কথা জানানো হয়েছে। এ জন্য কক্সবাজার বিশেষ ট্রেন বুধবার পর্যন্ত চলবে। ৩০ মে থেকে ১০ জুন পর্যন্ত ট্রেন চলাচল বাতিল করা হলো।

রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলের বিভাগীয় ব্যবস্থাপক (ডিআরএম) সাইফুল ইসলাম বলেন, পূর্বাঞ্চল থেকে চট্টগ্রাম-কক্সবাজার বিশেষ ট্রেন আগামী ৩০ মে থেকে বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্তে এটা বন্ধ রাখা হচ্ছে। মূলত ইঞ্জিন ও লোকোমাস্টারের সংকটের কারণ হিসেবে এ সিদ্ধান্ত।

কক্সবাজার আইনকনিক স্টেশনের মাস্টার মো. গোলাম রব্বানি বলেন, চট্টগ্রাম-কক্সবাজার রুটের বিশেষ ট্রেনটি চট্টগ্রাম রেলস্টেশন থেকে প্রতিদিন সকাল ৭টায় ছেড়ে কক্সবাজার পৌঁছায় সকাল ১০টা ২০ মিনিটে। আবার কক্সবাজার থেকে চট্টগ্রামের উদ্দেশে ছাড়ে সন্ধ্যা ৭টায়। চট্টগ্রামে পৌঁছায় রাত ১০টায়। যাত্রাপথে ট্রেনটি ষোলশহর, জানালিহাট, পটিয়া, দোহাজারী, সাতকানিয়া, চকরিয়া, ডুলাহাজারা ও রামু স্টেশনে থামে এবং যাত্রী পরিবহন করে। মোট ১১টি বগিতে আসন রয়েছে ৬’শোর মতো। প্রতিদিনই যাত্রীতে ঠাসা থাকে ট্রেন। যাত্রীদের চাহিদা রয়েছে ব্যাপক।

এদিকে চেম্বার অব কমার্স কর্তৃপক্ষ বলছে, চট্টগ্রাম-কক্সবাজার রুটে ট্রেন চলাচল বন্ধ করে দিলে বিরূপ প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হবে। চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি’র সভাপতি আবু মোর্শেদ চৌধুরী খোকা বলেন, ইঞ্জিন বা লোকোমাস্টারের সংকট তো জনগণ বুঝবে না। বর্তমান সরকারের প্রতি জনগণের বড় ধরণের প্রত্যাশা ছিল কক্সবাজার-চট্টগ্রাম ট্রেন চলাচল। এখন বিশেষ ট্রেন চালুর পর হুট বন্ধ হয়ে গেলে জনগণের মাঝে বিরূপ প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হতে পারে। তাই এ রুটে প্রতিদিনই ট্রেন চালু রাখার দাবি জানাচ্ছি।

গত বছরের ১১ নভেম্বর চট্টগ্রামের দোহাজারী থেকে কক্সবাজার পর্যন্ত নির্মিত ১০১ কিলোমিটার নতুন রেললাইন উদ্বোধন করেছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এরপর গত বছরের ১ ডিসেম্বর ঢাকা-কক্সাবাজার আনুষ্ঠানিকভাবে ট্রেন চলাচল শুরু হয়। চলতি বছরের ১০ জানুয়ারি পর্যটক এক্সপ্রেস নামের আরেকটি ট্রেন এ রুটে চালু করে রেল।

bdnewseu/30May/ZI/Train


আরো বিভন্ন ধরণের নিউজ