• বৃহস্পতিবার, ২৩ মে ২০২৪, ০২:১২ অপরাহ্ন
শিরোনাম
শেনজেন ভিসা ফি ১২শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে জুলাই থেকে কার্যকর ফিলিস্তিনকে স্বাধীন রাষ্ট্র হিসাবে ৩ দেশের স্বীকৃতি তেহরানে প্রয়াত প্রেসিডেন্ট রাইসির জানাজা পড়ালেন ইরানের সর্বোচ্চ ধর্মীয় নেতা ইমাম খামেনি শহরের কেন্দ্রস্থল এথেন্সের বাড়িতে আগুনে বৃদ্ধ ভাইবোন নিহত আগামীকাল বৃহস্পতিবার একাডেমিয়ার মিউনিসিপ্যালিটি মিউজিক থিয়েটারে লাইভ কনসার্ট হবে ভোলায় তিন উপজেলার নবনির্বাচিত তিন চেয়ারম্যান মালয়েশিয়ায় বিশেষ ব্যবস্থাপনায় কনস্যুলার সেবা প্রদানের উদ্যোগ হাইকমিশনের ঝালকাঠিতে উৎসবমুখর পরিবেশে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়েছে উপজেলা নির্বাচনে দ্বিতীয় ধাপে যারা চেয়ারম্যান নির্বাচিত হলেন রাইসির মৃত্যুতে বাংলাদেশে বৃহস্পতিবার একদিনের শোক ঘোষণা
বিজ্ঞপ্তি
প্রিয় পাঠক আমাদের সাইটে আপনাকে স্বাগতম এই সাইটি নতুন ভাবে করা হয়েছে। তাই ১৫ই অক্টোবর ২০২০ সাল এর আগের নিউজ গুলো দেখতে ভিজিট করুন : old.bdnewseu24.com

দেশের প্রথম লুব্রিকেটিং গ্রিজ প্রস্তুতকারক এবং রফতানিকারীর জনক ইউসুফের সাফল্যের গল্প

বিডিনিউজ ইউরোপ ন্যাশনাল ডেক্স
আপডেট : বৃহস্পতিবার, ৭ জানুয়ারী, ২০২১

দেশের প্রথম লুব্রিকেটিং গ্রিজ প্রস্তুতকারক এবং রফতানিকারীর পিতা মোহাম্মদ ইউসুফের সাথে কথোপকথনে
আমরা বাংলাদেশের লুব্রিকেন্ট বাজার সম্পর্কে অনেক অন্তর্দৃষ্টি পাই। এমন কিছু যা নিয়ে বেশি আলোচনা হয় না, তবুও কর্মসংস্থান এবং বিদেশী রাজস্বের অভাবনীয় সম্ভাবনা রাখে। লুব ব্লেন্ডিং প্ল্যান্ট (এলবিপি), লুব-রেফ (বাংলাদেশ) লিমিটেড দ্বারা উৎপাদিত তৈলাক্তকরণের সামগ্রীটি ‘বিএনও’ ব্র্যান্ডের অধীনে বাজারজাত করা হচ্ছে। কর্ণফুলী নদীর তীরে একটি নতুন শিল্প কমপ্লেক্স নির্মাণ, বিশাল প্রকল্প যার মধ্যে থাকবে জেটি, একটি ট্যাঙ্ক টার্মিনাল, একটি আধুনিক বেস তেল শোধনাগার, একটি হাইড্রোজেন প্ল্যান্ট এবং একটি বিশেষজ্ঞ বিটুমেন প্ল্যান্ট।


দেশের প্রথম বেসরকারী লুব্রিক্যান্ট মিশ্রণকারী সংস্থা লুব-রেফ (বাংলাদেশ) লিমিটেড তার সাফল্য অব্যাহত রাখতে পুঁজিবাজার থেকে ১৫০ কোটি টাকা সংগ্রহ করতে চায়। সম্প্রতি তিনি তার অফিসে টারবাইনকে সংস্থার ইতিহাস, বর্তমান কার্যক্রম, ব্যবসায়ের সম্ভাবনা এবং পরিকল্পনা সম্পর্কে কথা বলেছেন।

একজন সফল উদ্যোক্তা হওয়ার জন্য অবশ্যই অনেক চ্যালেঞ্জ ছিল। আপনার উদ্যোক্তা হওয়ার গল্পটি কী ছিল?

আমি ১৯৭৪ সালে অর্থনীতিতে স্নাতকোত্তর শেষ করেছি (১৯৮২ ব্যাচ) চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে। সেই মুহুর্তে শান্তিতে নোবেল জয়ী মুহাম্মদ ইউনূস স্যার এবং অন্যান্য শিক্ষকরা আমাদের চাকরির সন্ধান না করে উদ্যোক্তা হওয়ার জন্য অনুপ্রেরণা দিতেন এবং কোনও কাজে জড়িত থাকার পরামর্শ দিতেন। কারণ তৎকালীন যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশের শিল্পগুলির জাতীয়করণ বেসরকারী উদ্যোগের জন্য সুযোগ দেয়নি; কর্মসংস্থান সীমাবদ্ধ ছিল, অবকাঠামোগত এতটা বিকাশ ছিল না। সরকারী চাকরির সুযোগ খুব কম ছিল। তারপরে আমার বন্ধু এবং প্রয়াত মেয়র আনিসুল হক এবং আমি ভেবেছিলাম আমরা মধ্য প্রাচ্যে যাব। কিন্তু উদ্যোক্তা হওয়ার চিন্তাটি আমার মনে ক্রমাগত ছিল। এরই মধ্যে আমি নিউ এরা স্টিল মিলসের জিএম রফিকুল আলম চৌধুরীর সাথে পরিচয় হয়েছি। তিনি তার প্রতিষ্ঠানে গ্রীজ সরবরাহ করার প্রস্তাব দিয়েছিলেন। আমি সদরঘাটে দেশি-বিদেশি লুব্রিকেন্টস সংস্থা প্যারাগন অয়েল থেকে গ্রিজের ড্রামপ্রতি আট হাজার টাকায় পণ্য কিনে নিউ এরা এবং বিএসআরএমকে আট হাজার ২০০ টাকায় সরবরাহ করেছিলাম।

খরচ টি কেটে নেওয়ার পরে মুনাফা দেড়শ টাকা হয়। তখন থেকে আমার স্বপ্নটিও বাড়তে শুরু করে। আমরা উদ্যোক্তা হওয়ার স্বপ্নের সাথে ১৯৮৬ সালে যৌথভাবে একটি রাসায়নিক শিল্প প্রতিষ্ঠা করি। সেই থেকে আমি লুব্রিক্যান্ট ব্যবসায়ের সাথে জড়িত ছিলাম এবং গ্রিজ এবং লুব্রিক্যান্ট সম্পর্কে প্রয়োজনীয় জ্ঞান এবং অভিজ্ঞতা জমা করেছি। ১৯৮০ সালে আমি শিল্প ব্যাংকের তৎকালীন এমডি কামাল উদ্দিন এবং জিএম সৈয়দ আশরাফুল হককে অনুপ্রাণিত করে লোন প্রস্তাব জমা দিয়েছিলাম। পরে গ্রিজ হাউস লিমিটেডের লোন প্রস্তাবটি যথাক্রমে মহিউদ্দিন আলমগীর এবং ব্যাংকের এমডি তৌফিক-ই-ইলাহী চৌধুরীর পক্ষে অনুমোদিত হয়। প্রকল্পের জন্য মূলধন সরবরাহ করেছে ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড।
এরপরে আমরা তৎকালীন বিদ্যুৎ সচিব তৌফিক-ই-ইলাহী চৌধুরী এবং প্রাক্তন মন্ত্রী মেজর জেনারেল (অব।) নুরউদ্দিন খানের সহায়তায় বৃহত্তম তেল সংস্থা ফুক্স-জিএইচএল লুব্রিকেন্টস (বাংলাদেশ) এ জার্মানির বৃহত্তম তেল সংস্থা ফুক্সের যৌথ মালিকানাধীন বৃহত্তম লুব ব্লেন্ডিং প্ল্যান্ট স্থাপন করেছি। পেট্রলব এজি। আমি এখনও যখনই সময় এবং সুযোগ পাই বিশ্বের বিভিন্ন দেশে লুব্রিকেন্টস, পেট্রোকেমিক্যাল সম্পর্কিত কর্মশালায় অংশ নিই, যা আমাকে আমার বর্তমান অবস্থানে পৌঁছাতে সহায়তা করেছে।

লুব-রেফের বর্তমান ক্রিয়াকলাপগুলি সম্পর্কে আমাদের আরও বলুন।

লুব-রেফ (বাংলাদেশ) লিমিটেড ইতিমধ্যে দেশের সবচেয়ে নির্ভরযোগ্য প্রস্তুতকারক এবং লুব্রিক্যান্টের বিপণনকারী হিসাবে গ্রাহকদের আস্থা অর্জন করেছে। বর্তমানে, বার্ষিক ক্ষমতা সহ ১২৫৫০ টন মিশ্রণকারী উদ্ভিদটি দেশের মোট চাহিদার পাঁচ শতাংশ পূরণ করছে। আমাদের ২০১৯ সালে এটি 20 শতাংশে উন্নীত হয়েছে। অন্যদিকে, ১০,০০০ মেট্রিক টন ক্ষমতা সম্পন্ন পরিশোধক ইউনিটের সক্ষমতা ৯১.৭৫ শতাংশ ব্যবহার করা হচ্ছে। যা ২০১৫ সালে ছিল ৭৫.৬ শতাংশ। এবং ৩০ শে জুন, ২০১৮ শেষ হওয়া আর্থিক বছরে লুব-রেফের বিক্রি হয়েছে ১৫ কোটি টাকা লাভের সাথে ১১৮ কোটি ৬৭ লাখ টাকা। আগের অর্থবছরে তাদের মুনাফা ছিল ৯ কোটি ৩৩ লাখ টাকা, যার তুলনায় ৯০ কোটি ১৭ লাখ টাকা ছিল।

এখন আমরা মোট 35 ধরণের লুব্রিক্যান্ট তৈরি করছি। এই পণ্যগুলির সর্বোচ্চমান বজায় রাখতে আমাদের কাছে অত্যাধুনিক স্বীকৃত পরীক্ষাগার রয়েছে। এই পরীক্ষাগারে সমস্ত ব্যয়বহুল সরঞ্জামাদি উন্নত বিশ্বের সেরা সংস্থা থেকে কেনা হয়েছে। এটি বহু সংস্থার কাছ থেকে প্রযুক্তিগত স্বীকৃতি পেয়েছে। আমাদের পণ্যগুলির সর্বোত্তম মানের নিশ্চয়তা দেওয়ার পাশাপাশি আমরা অন্যান্য সংস্থাগুলিকে দেশের সর্বাধিক আধুনিক টেস্টিং ল্যাব হিসাবে পরীক্ষার পরিষেবাও সরবরাহ করছি।

লুব্রিকেন্ট বাজার সম্পর্কে আমাদের অন্তর্দৃষ্টি দিন। সেখানে কি ক্রমবর্ধমান প্রবণতা রয়েছে?

ক্রমবর্ধমান অর্থনৈতিক
গতিশীলতার সাথে তৈলাক্তকরণের চাহিদাও বাড়ছে। ভবিষ্যতে এই চাহিদা কয়েকগুণ বাড়বে। কারণ এটি দেশের অবকাঠামোগত বিকাশের অংশ হিসাবে প্রসারিত রেলপথ, বিদ্যুৎকেন্দ্র, সড়ক পরিবহন, জাহাজ, বিমান, উৎপাদন কারখানাগুলি এবং প্রতিটি ক্ষেত্রে প্রচুর লুব্রিকেন্ট ব্যবহার করা হবে এই ক্রমবর্ধমান চাহিদার বিপরীতে আমরা ইতিমধ্যে আমাদের ব্র্যান্ডকে আরও শক্তিশালী অবস্থানে নিয়ে যেতে বেশ কয়েকটি সম্প্রসারণ ও সহায়ক প্রকল্পগুলির কাজ শুরু করতে যাচ্ছি। ইনশাআল্লাহ আমরা দৃঢ়ভাবে আশাবাদী আমরা সফল হব।
মূলধনের বাজারে তালিকাবদ্ধ করতে সম্প্রতি একটি রোড শো করেছে মূলধন বাজারে আসার কারণ। আমি আমদানি নির্ভর পেট্রোকেমিক্যাল এবং লুব্রিক্যান্ট ট্রেডিং থেকে পেট্রোকেমিক্যাল এবং লুব্রিক্যান্ট শিল্পে রূপান্তর করতে দেশকে পরিবেশন করতে ব্যবসায় এলাম। আমরা এই রূপান্তরে সহযোগী হিসাবে বিনিয়োগকারীদের পেতে চাই। বর্তমানে স্থানীয় লুব্রিকেন্ট বাজারের প্রায় পাঁচ শতাংশ বিএনও ব্র্যান্ডের দখলে। যদি এই বর্ধিত ক্ষমতা এবং বিপণনের প্রচেষ্টা সফল হয় তবে এই হার ২৫ শতাংশে বাড়ানো সম্ভব। এতে আমাদের আয় কয়েকগুণ বাড়বে। এর জন্য আমাকে মূলধনের বাজারে তালিকাভুক্ত করা হচ্ছে। আমাদের বিস্তৃত সম্প্রসারণ কার্যক্রমের অংশ হিসাবে আমাদের বেস তেল শোধনাগার, ট্যাঙ্ক টার্মিনাল, বার্থ অপারেটিং জেটি, বিটুমেন প্লান্ট, হাইড্রোজেন প্লান্ট এবং পাওয়ার প্ল্যান্ট রয়েছে। এবং ৬০,০০০ টন-এক বছরের বেস তেল শোধনাগার সহ, দেশের তৈলাক্ত শিল্পে একটি নতুন মাত্রা যুক্ত হবে। এটি শিল্প সুরক্ষা এবং প্রযুক্তি স্থানান্তর তৈরি করবে, মূল্যবান বৈদেশিক মুদ্রা সাশ্রয় করার পাশাপাশি স্থানীয়ভাবে অনেক প্রযুক্তিবিদ তৈরি করবে।

আপনি কীভাবে আইপিও থেকে প্রাপ্ত অর্থ ব্যবহার করার পরিকল্পনা করছেন?

নিয়ন্ত্রকের অনুমোদনের মাধ্যমে, ১৫০ কোটি টাকার আইপিওর মধ্যে ৯৬ কোটি টাকা কোম্পানির সম্প্রসারণ প্রকল্পে বিনিয়োগ করা হবে। উচ্চ সুদের লোন পরিশোধে ব্যয় হবে ৪৮ কোটি টাকা। বাকি ৬ কোটি টাকা আইপিও প্রক্রিয়া ও অন্যান্য ব্যয় ব্যয় হবে। তবে তাদের সম্প্রসারণের জন্য কোনও জমি ক্রয় বা নির্মাণ প্রকল্পের প্রয়োজন হবে না। আইপিওর টাকা পাওয়ার পরে সরঞ্জাম আমদানির প্রক্রিয়া শুরু করব। এক্ষেত্রে প্রস্তাবিত সরঞ্জামের উদ্ধৃতি নেওয়া হয়েছে। এক বছরের মধ্যে সেট আপ করে সেখানে বাণিজ্যিক উত্পাদন শুরু হবে। লোন পরিশোধের জন্য নির্ধারিত অর্থ আইপিও তহবিল পাওয়ার সাথে সাথে ব্যবহার করা হবে।

বিনিয়োগকারীরা কী আশা করতে পারে সে সম্পর্কে আপনি কিছু বলুন ?

লুব-রেফ (বাংলাদেশ) লিমিটেড একটি শিল্প প্রকল্প যা পর্যাপ্ত ইক্যুইটি বিনিয়োগের সাথে প্রতিষ্ঠিত। এটি বিনিয়োগকারীদের জন্য একটি ১০০% নিরাপদ এবং নির্ভরযোগ্য প্রতিষ্ঠান। পেট্রোকেমিক্যাল এবং লুব্রিকেন্টস শিল্পে আমাদের চার দশকের ব্যবহারিক অভিজ্ঞতা রয়েছে। আমরা ইতিমধ্যে স্থানীয় উদ্ভিদে বিশ্বমানের লুব্রিক্যান্ট প্রস্তুত করে ক্রেতাদের আস্থা অর্জন করেছি। বিএনও বর্তমানে একটি ভাল পরিচিত লুব্রিক্যান্ট ব্র্যান্ড। এবং প্রতিযোগিতামূলক দামে দেশে মোটরগাড়ি, শিল্প ও সামুদ্রিক লুব্রিকেন্টের বিক্রয় ক্রমাগত বৃদ্ধি পাচ্ছে। এছাড়াও, সম্প্রসারণ প্রক্রিয়াটি শেষ হয়ে গেলে, লুব-আরেফ দেশের সীমানা ছাড়িয়ে রফতানি করার চেষ্টা করবে।
বিডিনিউজ ইউরোপ/২৬ নভেম্বর/ জই


আরো বিভন্ন ধরণের নিউজ