• শুক্রবার, ১২ এপ্রিল ২০২৪, ০৪:৫৯ অপরাহ্ন
শিরোনাম
এক শতাব্দী পর নামাজের জন্য খুলেছে গ্রিসের ঐতিহাসিক মসজিদ ইয়েনি এবং সুলেমানিও জাপানের কানসাই আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর সাগরে ডুবে যাচ্ছে ধ্বংসাবশেষে ফিলিস্তিনিদের ঈদের নামাজ আদায় জলদস্যুদের কড়া পাহারায় নাবিকরা ঈদের নামাজ পড়েছেন জাহাজেই অভিন্ন রাজনৈতিক আশ্রয়-নীতির পথে ইউরোপীয় ইউনিয়ন চরভদ্রাসনে অভিবাসী কর্মীদের একর্তীকরন ও সচেতনা মুলক সভা অনুষ্ঠিত নারায়ণগঞ্জ কলেজ কমিটি গঠন, বাংলাদেশ ছাত্র ফেডারেশন চরফ্যাশনে গুরতে আসা, দুই ভাইয়ের নানা বাড়িতে মৃত্যু ভোলায় নারী উদ্যোক্তাদের ঈদ মেলা ২০২৪ উদ্বোধন করলেন : আরিফুজ্জামান ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও আমেরিকার মাটিতে বসবে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের নবম আসর
বিজ্ঞপ্তি
প্রিয় পাঠক আমাদের সাইটে আপনাকে স্বাগতম এই সাইটি নতুন ভাবে করা হয়েছে। তাই ১৫ই অক্টোবর ২০২০ সাল এর আগের নিউজ গুলো দেখতে ভিজিট করুন : old.bdnewseu24.com

রাশিয়ান সৈন্যদের দখলে ইউরোপের বৃহত্তম পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র

কবির আহমেদ কূটনীতিক প্রতিবেদক আন্তর্জাতিক ডেক্স
আপডেট : সোমবার, ১৪ মার্চ, ২০২২

রাশিয়ান সৈন্যদের দখলে ইউরোপের বৃহত্তম পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র ইউক্রেন সরকার জানিয়েছে,রাশিয়ানরা এখন ইউরোপের বৃহত্তম জাপোরিজিয়া পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র তাদের নিয়ন্ত্রণে নিয়ে নিয়েছে। গতকাল রোববার (১৩ মার্চ) অস্ট্রিয়ার রাজধানী ভিয়েনায় অবস্থিত আন্তর্জাতিক পারমাণবিক শক্তি সংস্থা (IAEA) কে রিপোর্ট করেছে যে ইউক্রেনে অবস্থিত ইউরোপের সর্ব বৃহত্তম জাপোরিঝিয়া পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রটির নিয়ন্ত্রণভার রাশিয়ান সৈন্যরা তাদের নিয়ন্ত্রণে নিয়ে নিয়েছে। IAEA আরও জানিয়েছেন,ইউক্রেনের পারমাণবিক শক্তি অপারেটর Enerhoatom আনুষ্ঠানিকভাবে তাদের কাছে এর সত্যতা নিশ্চিত করে বার্তা পাঠিয়েছে।অস্ট্রিয়ার জনপ্রিয় নিউজ নেটওয়ার্ক Oe24 গতকাল রাতে জানায়, ইউক্রেনের জাপোরিঝিয়া পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রে, যা রাশিয়ান সৈন্যদের দ্বারা দখল করা হয়েছে, এটি অস্পষ্ট নয় যে অপারেশন এবং নিরাপত্তার জন্য দায়ী কে। ইউক্রেনের পারমাণবিক শক্তি অপারেটর Enerhoatom আন্তর্জাতিক পারমাণবিক শক্তি সংস্থা (IAEA) কে রিপোর্ট করেছে যে পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রটি বর্তমানে”রাশিয়ান সশস্ত্র বাহিনীর কমান্ডারের নিয়ন্ত্রণে আছে,” যেমনটি IAEA সন্ধ্যায় জানিয়েছে। IAEA পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের নিয়ন্ত্রণ সৈন্যদের হাতে যাওয়া নিয়ে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছে।

ইউক্রেনের পারমাণবিক শক্তি অপারেটর – Enerhoatom এর মতে, ব্যবস্থাপনাকে অবশ্যই রাশিয়ান সশস্ত্র বাহিনীর সাথে প্রযুক্তিগত সমস্যা সহ সমস্ত অপারেশনাল সমস্যাগুলির সমন্বয় করতে হবে। অন্যদিকে, রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন কোম্পানি রোসাটম আইএইএ (IAEA) এর সাথে বিনিময়ে অপারেশনাল নিয়ন্ত্রণ নেওয়ার বিষয়টি অস্বীকার করেছে।
রাশিয়া বর্তমান পরিস্থিতিতে পারমাণবিক নিরাপত্তার সাতটি অপরিহার্য স্তম্ভের একটি লঙ্ঘন করছে, সন্ধ্যায় IAEA মহাপরিচালক রাফায়েল গ্রসি সতর্ক করেছেন। এটি স্তম্ভ “অপারেশন কর্মীদের অবশ্যই তাদের নিরাপত্তার দায়িত্ব পালন করতে এবং অযাচিত চাপ থেকে মুক্ত সিদ্ধান্ত নিতে সক্ষম হতে হবে”।

গ্রসি ইউক্রেনের পারমাণবিক স্থাপনার নিরাপত্তা নিয়ে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। IAEA সকল প্রকার সাহায্য করার জন্য প্রস্তুত, তবে এটি রাশিয়া এবং ইউক্রেনের মধ্যে পারমাণবিক স্থাপনাগুলির সুরক্ষার বিষয়ে একটি জরুরিভাবে প্রয়োজনীয় চুক্তির অনুমান অনুসারে করতে হবে। এদিকে IAEA মহাপরিচালক রাফায়েল গ্রসি গত বৃহস্পতিবার তুরস্কের আন্টালিয়ায় রাশিয়া ও ইউক্রেনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই লাভরভ এবং দিমিত্রো কুলেবার সাথে এই বিষয়ে কথা বলেছেন।

কিয়েভ থেকে পাওয়া তথ্য অনুসারে, রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন কোম্পানি রোসাটমের ১১ জন কর্মচারী, ২ জন ইঞ্জিনিয়ার সহ, প্রায় ৪০০ শতাধিক সৈন্য জাপোরিজিয়া পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রটির দখল নিয়েছে। অবশ্য দখলের পূর্বে সেখানে ইউক্রেন সৈন্যদের সাথে এক রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ সংগঠিত হয়। তবে কোন পক্ষই হতাহতের সংখ্যা প্রকাশ করে নি। অবশ্য ইউক্রেন কর্তৃপক্ষ এই পর্যন্ত যুদ্ধে তাদের ১৩০০
শত সৈনিক নিহতের কথা জানিয়েছে।একটি রাশিয়ার এই স্বঘোষিত সামরিক-বেসামরিক প্রশাসনের প্রতিনিধিরা বলেছেন যে গ্রুপটি ইউরোপের এই বৃহত্তম পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের নিরাপত্তা মূল্যায়ন করবে এবং মেরামতের কাজের জন্যও দায়ী থাকবে। রাশিয়ান রোসাটম ইউরোপের বৃহত্তম পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রে বেশ কয়েকজন রাশিয়ান বিশেষজ্ঞের উপস্থিতি নিশ্চিত করেছে। তারা আটক ইউক্রেনীয় বিশেষজ্ঞদের “পরামর্শ” নিচ্ছেন।

ইউক্রেনীয় সূত্রে জানা গেছে, পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের একটি চুল্লির কাছে একটি প্রশিক্ষণ ভবনে এক সপ্তাহেরও বেশি সময় আগে আগুন লেগেছে বলে জানা গেছে। IAEA এর মতে, তথ্যের স্বয়ংক্রিয় ট্রান্সমিশন এখন বাধার পরে আবার কাজ করছে। IAEA এর মতে, প্রাক্তন চেরনোবিল পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের প্রযুক্তিবিদরা বিদ্যুৎ লাইনের কিছু অংশ মেরামত করতে পেরেছিলেন। জ্বালানি উপাদান শীতল করার জন্য বিদ্যুৎ সরবরাহ গত সপ্তাহে বিঘ্নিত হয়েছিল। যাইহোক, IAEA এতে কোনো নিরাপত্তা সমস্যা দেখেনি। এছাড়াও, জরুরি জেনারেটর পরিচালনার জন্য আরও ডিজেল সরবরাহ করা যেতে পারে।

বিডিনিউজ ইউরোপ২৪ডটকম/১৪মার্চ/জই


আরো বিভন্ন ধরণের নিউজ